সাইকেলে চড়ে চার বাঙালি ভূপর্যটকের বিশ্বজয়

সাইকেলে চড়ে চার বাঙালি ভূপর্যটকের বিশ্বজয়
বই পড়ব বলে বই পড়া হয় না বহুদিন। মাঝখানে রাত জেগে পিডিএফ ডাউনলোড করার নেশা থেকে হাজার দেড়েক বই ডাউনলোড করা হয়ে গেলো। কদিন হলো বিমল মুখোপাধ্যায়ের ‘দু চাকার দুনিয়া’ বইটা পড়া শুরু করেছি।
ওড়িশা রাজ্যের গঞ্জাম জেলায় জন্মগ্রহণ করা এই ভদ্রলোক অশোক মুখোপাধ্যায়, আনন্দ মুখোপাধ্যায় ও মণীন্দ্র ঘোষকে সাথে নিয়ে সাইকেলে চড়ে বেরিয়ে পড়েন পৃথিবী দেখার জন্যে তাও একটা কমিটি টাকা পাঠাবে এই আশ্বাসে।
১৯২৬ সালে কলকাতার টাউন হল থেকে শুরু করার পর তাদের যাত্রা শেষ হয় ১৯৩৭ সালে। এর মধ্যেই আরব, ইরান, তুরস্ক, সিরিয়া, ব্রিটেন, আইসল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, রাশিয়া, গ্রীস, মিশর, সুদান, ইতালি, সুইজারল্যান্ড, ফ্রান্স, ডেনমার্ক, জার্মানি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কলম্বিয়া ,ইকুয়েডর , পেরু , হাওয়াই, জাপান, চীন, হংকং, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া সহ মোটামুটি সব মহাদেশ ঘুরে ফেললেন।
অর্থের নিশ্চিত কোন সংস্থান না থাকার পরও কি অসীম সাহস নিয়ে তারা বেরিয়ে পড়েছিলেন সেটা ভেবে তাদের প্রতি খুব শ্রদ্ধাবোধ জাগছে। টাকার কারণে আধপেটা, উপোস থেকে কখনোই হাল ছেড়ে দেননি। অর্থের প্রয়োজন হলে ফটোগ্রাফি, নাবিকের কাজ, ভ্রমণের বিষয়ে স্কুলে বক্তৃতা দিয়ে, ডেয়ারী ফার্মে গো পালন করে, মাছ ধরার ট্রলারে ও স্কুলে পড়ানোর কাজ করেছেন।
কলকাতার টাউন হল থেকে তারা বিবেকান্দ সেতু পেরিয়ে চন্দননগর, বর্ধমান, রাঁচি, বেনারস, এলাহাবাদ হয়ে দিল্লি পৌঁছন। দিল্লি থেকে বিদেশযাত্রার অনুমতিপত্র নিয়ে আলোয়ার, জয়পুর, গোয়ালিয়র, ভরতপুর, দুঙ্গারগড় ও প্রতাপগড়ের যান। তারপর চললেন আজমির, উদয়পুর হয়ে যোধপুর। যোধপুর থেকে তাঁরা থর মরুভূমির মধ্য দিয়ে দুই মাস ধরে যাত্রা করে হায়দ্রাবাদ ও করাচি পৌঁছন। করাচি থেকে বি আই কোম্পানীর জাহাজে করে বাসরা পৌছে সেখান থেকে মরুভূমির পথে তাঁরা বাগদাদ হয়ে সিরিয়ায় প্রবেশ করেন।
ভ্রমণ শেষ করার ৫০ বছর পর মায়ের অনুরোধে তিনি বইটা লিখেছিলেন।
বই সবে ৮০ পৃষ্ঠা মত পড়া হয়েছে। এর মধ্যেই তৎকালীন বড় শহরগুলোতে বাঙালিদের উপস্থিতি কিংবা ভারতীয়দের প্রতি অন্য দেশের মানুষদের চিন্তাভাবনার পরিচয় কিংবা তৎকালীন যুদ্ধোত্তর ইউরোপের পরিস্থিতি সম্পর্কে ভাল ধারণা পাওয়া গেছে।
কেন আরো আগে এই বইয়ের সাথে পরিচিত হতে পারিনি এটা জীবনের এক নাম্বার আফসোসের জায়গাতে রেখেছি।
আপাতত লেখকের সাথে বার্লিন আছি। তাদের আরো দু তিন মাস বার্লিনে কোন কাজ করে কাটাতে হবে। তারা অপেক্ষা করছেন কবে দেশ থেকে কমিটি তাদের টাকা পাঠাবে। বইটা পড়া শেষ করে একটা রিভিউ দেব।
বইয়ের পিডিএফ লিংক : http://www.amarboi.com/…/duchakay-duniya-bimal-mukherjee.ht…

Post a Comment

0 Comments