ভিসা ছাড়াই যাওয়া যাবে যেসব দেশে

দেশের বাইরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশি পাসপোর্টের সামান্য উন্নতি হয়েছে। হেনলি পাসপোর্ট ইনডেক্সে উন্নতি হয়েছে বাংলাদেশের। মূলত দেশের বাইরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে পাসপোর্টের সক্ষমতা সূচত হিসেবে এটি ব্যবহৃত হয়। বৈশ্বিক র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের পাসপোর্ট গতবছর ৯৯ নম্বরে থাকলেও এবার উঠে এসেছে ৯৮ নম্বরে। 
হেনলি অ্যান্ড পার্টনারসের তথ্য অনুসারে, বিশ্বের ২০টি দেশে ভিসামুক্ত ও ২০টি দেশে ভিসা-অন-অ্যারাইভাল ভিসায় ভ্রমণ করতে পারবেন বাংলাদেশের নাগরিকেরঅ। এছাড়াও শ্রীলঙ্কায় ইলেক্ট্রনিক ট্রাভেল অথরাইজেশন (ইটিএ) সুবিধায় ভ্রমণ করতে পারেন। বাদবাকী ১৮৬টি দেশে যাওয়ার জন্যে যে কোন বাংলাদেশী নাগরিকের ভিসার প্রয়োজন হবে।

এশিয়ায় মালদ্বীপ, নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও পূর্ব-তিমুর এবং আমেরিকা অঞ্চলে বলিভিয়ায় ভিসা-অন-অ্যারাইভাল সুবিধাটি রয়েছে। তবে ভুটান ও নেপাল যেতে কোন ভিসার প্রয়োজন হয় না।
ভিসা-অন-অ্যারাইভাল সুবিধা সবচেয়ে বেশি যে উপমহাদেশে দেওয়া হয় সেটি হলো আফ্রিকা। বেশি পেয়ে থাকেন আফ্রিকায়। এর মধ্যে আছে সোমালিয়া, সিয়েরা লিওন, মরিটানিয়া,  কেপ ভার্দে আইল্যান্ড, কমোরেস আইল্যান্ড, গিনিয়া-বিসাউ, কেনিয়া, মাদাগাস্কার, মোজাম্বিক, রুয়ান্ডা, সিশেলেস, সেনেগাল, টোগো ও উগান্ডা। তবে গাম্বিয়া ও লেসোথোতে কোন ভিসার প্রয়োজন হয় না।
পশ্চিম আফ্রিকার দেশ সেনেগালেও ভিসা-অন-অ্যারাইভাল নিয়মে যাওয়া যাবে।


হেনলি পাসপোর্ট ইনডেক্সে বাংলাদেশের পাসপোর্টক্যারিবীয় দ্বীপগুলোর মধ্যে ১১টি জায়গায় ভিসামুক্ত যাতায়াত করতে পারেন বাংলাদেশিরা। গন্তব্যগুলো হলো বাহামাস, বারবাডোজ, ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ড, ডমিনিকা, গ্রেনাডা, হাইতি, জ্যামাইকা, মন্টসেরাত, সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস, সেন্ট ভিনসেন্ট অ্যান্ড গ্রেনাডাইনস ও ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো।
প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশের মধ্যে কুক আইল্যান্ডস, ফিজি, মাইক্রোনেশিয়া, নুই ও ভানুয়াতুতে বাংলাদেশের পাসপোর্টধারীরা ভিসা ছাড়া যেতে পারেন। এছাড়া সামোয়া ও টুভালুতে বাংলাদেশিদের জন্য ভিসা-অন-অ্যারাইভাল সুবিধা রয়েছে।

Post a Comment

0 Comments